সিলেট ৭ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সিলেটে বন্ধ ফ্রি ওয়াইফাই: অকেজো পড়ে আছে মূল্যবান যন্ত্রপাতি

সিলেটের বার্তা ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ৬, ২০২২, ০১:২৫ অপরাহ্ণ
সিলেটে বন্ধ ফ্রি ওয়াইফাই: অকেজো পড়ে আছে মূল্যবান যন্ত্রপাতি
অন্যজনকে শেয়ার করুন⤵️Share with others

প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ রয়েছে সিলেট নগরে বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই সেবা। ওয়াই-ফাইসেবা প্রদানের জন্য স্থাপিত মূল্যবান যন্ত্রপাতি অকেজো পড়ে আছে। আবার কবে এটা সচল হবে তাও অনিশ্চিত।

ডিজিটাল সিলেট প্রকল্পের আওতায় চালু করা এই সেবা বন্ধ থাকা প্রসঙ্গে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ বলছে- ‘প্রকল্পটি আইসিটি মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল বাস্তবায়ন করে। পরে তা সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু এর খরচ কিভাবে চলবে সে ব্যাপারে কোন নির্দেশনা নেই। তাই টাকার অভাবে ওয়াই-ফাইসেবা বন্ধ রয়েছে। তবে প্রকল্পটি আবার চালুর জন্য সিটি করপোরেশন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’

সিলেট সিটি করপোরেশনসূত্র জানায়, ডিজিটাল সিলেট সিটি প্রকল্পের আওতায় ২০২০ সালের মার্চে নগরে পাবলিক ওয়াই-ফাই জোন চালু, আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স সম্বলিত আইপি ক্যামেরা স্থাপন ও অনলাইন ট্র্যাকিং সিস্টেম চালু করা হয়। এই প্রকল্পে ব্যয় হয় প্রায় ৫০ কোটি টাকা।

ওয়াই-ফাই জোন চালুর পর নগরের ৬২টি এলাকার ১২৬টি পয়েন্ট থেকে বিনামূল্যে ইন্টারনেট সেবা পেতেন নগরবাসী। ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ইউজার নেম ও ‘জয় বাংলা’ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে নগরবাসী ওয়াইফাই ব্যবহার করতে পারতেন। তবে সিলেট সিটি করপোরেশনের কাছে এই প্রকল্প হস্তান্তরের পর থেকেই বিনামূল্যে ওয়াই-ফাইসেবা বন্ধ হয়ে যায়।

সিলেট সিটি করপোরেশন জানিয়েছে, আর্থিক সমস্যার কারণে তারা বিনামূল্যে ওয়াইফাই সেবা দিতে পারছে না।

করপোরেশনের সংশ্লিষ্টরা জানান, ‘ডিজিটাল সিলেট সিটি’ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল নগরে বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই সুবিধা চালু করে ২০২০ সালে। নগরের ৬২টি এলাকায় ১২৬টি পয়েন্টে ওয়াইফাই জোন স্থাপন করা হয়।

ওই সময় ডিজিটাল সিলেট প্রকল্পের সহকারী পরিচালক মধুসূধন চন্দ জানিয়েছিলেন, প্রতিটি এক্সেস পয়েন্টে একসঙ্গে অন্তত ৫শ জন বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে পারবেন। এর মধ্যে ১০০ জন উচ্চগতির ইন্টারনেট পাবেন।

প্রতিটি এক্সেস পয়েন্টের চারদিকে ১০০ মিটার এলাকায় ব্যান্ডউইথ থাকবে প্রতি সেকেন্ডে ১০ মেগাবাইট। অবশ্য শুরু থেকেই ইন্টারনেটের মন্থর গতি নিয়ে অভিযোগ ছিল ব্যবহারকারীদের। তবে গতি ধীর হলেও প্রায় সব এলাকা থেকে ওয়াই-ফাই সুবিধা মিলছিল। ২০২১ সালের ২১ মার্চ এই প্রকল্পের দায়িত্ব সমঝে দেওয়া হয় সিলেট সিটি করপোরেশনকে।

প্রকল্পটির খরচ কিভাবে চলবে এ ব্যাপারে স্পষ্টতা না থাকায় সিটি করপোরেশন প্রথমে প্রকল্পটি নিতে চায়নি। পরে এব্যাপারে দফায় দফায় আলোচনা করে শেষ পর্যন্ত সিটি করপোরেশন তা গ্রহণ করে। সিটি করপোরেশন প্রকল্প সমঝে নেওয়ার পর কয়েক মাস ওয়াই-ফাইসেবা চালু ছিল। এরপর তা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। নগরে এখন ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড লিখে ওয়াই-ফাই কানেক্ট হওয়া গেলেও ইন্টারনেট ডিজেবলড দেখায়।

কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক ছাত্র জানান, ফ্রি ওয়াই-ফাই চালু হওয়ার পর তাদের অনেক সুবিধা হয়েছিল। কিছুটা ধীরগতির ইন্টারনেট হলেও প্রয়োজনীয় কাজ তারা করে নিতে পারতেন। এখন এই সেবা বন্ধ থাকায় তারা হতাশ।

এ ব্যাপারে সিটি করপোরেশনের গণসংযোগ কর্মকর্তা আবদুল আলিম শাহ জানান, এটি বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের একটি পাইলট প্রকল্প ছিল। প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর তারা এটি সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর করে। কিন্তু এর খরচ নির্বাহের কোন ব্যবস্থা নেই। তাই বন্ধ রয়েছে। এখন সিটি করপোরেশন প্রকল্পটি চালুর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, নগরে বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই’র ১২৬টি এক্সেস পয়েন্ট (এপি) হচ্ছে- চৌকিদেখিতে ১টি, আম্বরখানা পয়েন্টে ৪টি, দরগা গেইটে ২টি, চৌহাট্টায় ৩টি, জিন্দাবাজারে ৪টি, বন্দরবাজার ফুটওভার ব্রিজ এলাকায় ৩টি, হাসান মার্কেট এলাকায় ৫টি, সুরমা ভ্যালি রেস্ট হাউস এলাকায় ২টি, সার্কিট-হাউস জালালাবাদ পার্ক এলাকায় ৩টি, কিন ব্রিজের দুই প্রান্তে ৬টি, রেলওয়ে স্টেশনে ৪টি, বাস টার্মিনালে ৩টি, কদমতলী পয়েন্ট ও সংলগ্ন এলাকায় ৫টি, হুমায়ুন রশীদ চত্বরে ৩টি, আলমপুর পাসপোর্ট অফিস এলাকায় ২টি, বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় এলাকায় ৩টি, সিলেট শিক্ষাবোর্ডে ২টি, উপশহর রোজভিউ পয়েন্টে ২টি, শহাজালাল উপশহর ই-ব্লক ও বি-ব্লকে ১টি করে ২টি, টিলাগড় পয়েন্টে ৩টি, এমসি কলেজ এলাকায় ২টি, শাহী ঈদগাহ এলাকায় ৩টি, কুমারপাড়া এলাকায় ৩টি, কুমারপাড়া সড়কে ২টি, দক্ষিণ বালুচরে ১টি, টিচার্স ট্রেনিং কলেজে ১টি এবং ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে ১টি, নাইওরপুল পয়েন্টে ২টি, মিরাবাজার সড়কে ১টি, রায়নগর এলাকায় ১টি, সোবহানীঘাট পুলিশ স্টেশন এলাকায় ২টি, ধোপাদিঘিরপাড় বঙ্গবীর ওসমানী শিশু উদ্যানে ১টি, বন্দরবাজার জামে মসজিদ এলাকায় ২টি, নয়াসড়ক পয়েন্ট ও সংলগ্ন এলাকায় ৪টি, কাজীটুলা এলাকায় ২টি, চৌহাট্টা সড়কে ৩টি, হাউজিং এস্টেট সড়কে ১টি, সুবিদবাজারে ১টি, মিরের ময়দানে ১টি, পুলিশ লাইন সড়কে ১টি, রিকাবীবাজার জেলা স্টেডিয়ামে ২টি, মদন মোহন কলেজ এলাকায় ১টি, মির্জাজাঙ্গাল সড়ক এলাকায় ২টি, পাঁচ ভাই রেস্টুরেন্ট এলাকায় ১টি, খুলিয়াপাড়া এলাকায় ১টি, নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি এলাকায় ১টি, তালতলা হোটেল গুলশান এলাকায় ১টি, কাজিরবাজার সেতু এলাকায় ১টি, কাজিরবাজার সড়কে ২টি, খোজারখলা সিলেট টেকনিক্যাল কলেজ এলাকায় ১টি, বাগবাড়ি ওয়াপদা মহল্লায় ১টি, পাঠানটুলায় ১টি, মদিনা মার্কেট পয়েন্টে ২টি, শাহাজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গেটে ২টি এবং ওসমানী মেডিকেল কলেজ এলাকায় ১টি।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১