আজ বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সিলেটে ৭ দিন পর বন্ধ হচ্ছে ইন্টারনেট সংযোগ

সিলেটের বার্তা ডেস্ক
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০, ১১:১১ অপরাহ্ণ
সিলেটে ৭ দিন পর বন্ধ হচ্ছে ইন্টারনেট সংযোগ

সিলেটের বার্তা ডেস্ক:: ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়া এখনকার দিনে কোনো কিছুই কল্পনাতীত। প্রতিমুহুর্তে দাপ্তরিক কিংবা ব্যক্তিগত-সব ধরনের কাজে ইন্টারনেট সংযোগ অবশ্যম্ভাবী। সেই ইন্টারনেট সংযোগ (ব্রডব্যান্ড) আগামী ৯ দিন (৭ কর্মদিবস) পর বন্ধ হয়ে যেতে পারে সিলেট মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি এলাকায়। সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) এ নিয়ে বিশেষ বিজ্ঞপ্তিও দিয়েছে।

জানা গেছে, সিলেট মহানগরীর প্রায় ৭ কিলোমিটার এলাকায় বৈদ্যুতিক ক্যাবল (তার) ভূগর্ভে (মাটির নিচে) নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে দেশের প্রথম এলাকা হিসেবে ‘তারবিহীন নগরী’ হচ্ছে সিলেট। সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) সহযোগিতায় বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিউবো) এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে শুধুমাত্র বৈদ্যুতিক ক্যাবল এবং সরকারি ইন্টারনেট সেবা সংস্থা বিটিসিএলের ক্যাবলসমূহ মাটির নিচে নেওয়া হচ্ছে।

কিন্তু বেসরকারি ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের (আইএসপি) ক্যাবল মাটির নিচে নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। আবার ‘তারবিহীন নগরী’ গড়তে তাদেরকে ওভারহেড (মাটির উপর দিয়ে) ইন্টারনেট ক্যাবল টানার সুযোগ দিতেও অনীহা সিসিকের। এরকম অবস্থায় আইএসপি’র আওতায় থাকা প্রায় ৪০টি ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কয়েক হাজার গ্রাহক পড়েছেন ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্নে শঙ্কায়। বিশেষ করে সরকারি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক ও বীমা এবং সংবাদপত্রের কার্যালয়গুলোতে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্নের প্রভাব পড়বে সবচেয়ে বেশি।

সিসিক সূত্র জানিয়েছে, বিউবোর অর্থায়নে ও সিসিকের সহযোগিতায় সিলেট মহানগরীতে ‘বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প’ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ প্রকল্পে ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৫৫ কোটি টাকা। ইতিমধ্যে এ প্রকল্পের আওতায় নগরীর হযরত শাহজালাল (রহ.) এর দরগাহের প্রবেশপথ থেকে মূল ফটক পর্যন্ত এলাকায় বৈদ্যুতিক ক্যাবল মাটির নিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে নগরীর আম্বরখানা ইলেকট্রিক সাপ্লাই থেকে চৌহাট্টা, জিন্দাবাজার ও সিটি পয়েন্ট হয়ে সিলেট সার্কিট হাউজ পর্যন্ত, চৌহাট্টা পয়েন্ট থেকে রিকাবীবাজার হয়ে নবাব রোডস্থ বিউবোর বাগবাড়ি কার্যালয় পর্যন্ত এবং জিন্দাবাজার পয়েন্ট থেকে পূর্ব জিন্দাবাজার হয়ে জেলরোড পয়েন্ট পর্যন্ত এলাকায় বৈদ্যুতিক ক্যাবল মাটির নিচে নেওয়ার কাজ প্রায় শেষপর্যায়ে। সপ্তাহখানেকের মধ্যে এসব এলাকায় মাটির উপরে থাকা বৈদ্যুতিক ক্যাবল ও খুঁটি সরিয়ে নেওয়া হবে। বিদ্যুৎ সংযোগ চালু হবে মাটির নিচ দিয়ে।

আরও পড়ুন:  শিবগঞ্জ থেকে দুই চোরাকারবারি গ্রেফতার

এক্ষেত্রেই ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের (আইএসপি) সংযোগকৃত ইন্টারনেট বিচ্ছিন্ন হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। কেননা, আইএসপি’র কোনো ক্যাবল মাটির নিচ দিয়ে নেওয়ার আইনত সুযোগ নেই। কিন্তু সংযোগ চালু রাখতে সিসিক কিংবা বিউবো তাদেরকে কোনো সুযোগ করে দিচ্ছে না বলে আইএসপি’র নেতৃবৃন্দের অভিযোগ।

আজ শনিবার সিলেট সিটি করপোরেশন একটি বিশেষ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। সিসিকের নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) এর বরাতে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘বিউবো এর বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় আম্বরখানা ইলেকট্রিক সাপ্লাই থেকে চৌহাট্টা, জিন্দাবাজার ও সিটি পয়েন্ট হয়ে সিলেট সার্কিট হাউস পর্যন্ত, চৌহাট্টা পয়েন্ট থেকে রিকাবীবাজার হয়ে নবাব রোডস্থ বিউবোর বাগবাড়ি কার্যালয়, পূর্ব জিন্দাবাজার থেকে জেলরোড পয়েন্ট পর্যন্ত রাস্তার উভয় পার্শ্বে ওভারহেড বৈদ্যুতিক তারসমূহ ভূগর্ভে স্থানান্তরের কাজ শেষ হয়েছে। উল্লেখিত এলাকাসমূহে স্থাপিত সকল বৈদ্যুতিক খুঁটি এবং ওভারহেড তারসমূহ বিউবো কর্তৃক অপসারণ করা হবে। বৈদ্যুতিক খুঁটি অপসারণ করার ফলে খুঁটিসমূহে স্থাপিত ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের (আইএসপি) ক্যাবলসমূহও অপসারিত হবে। যার ফলে ইন্টারনেট সংযোগ বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উক্ত বিষয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি), ন্যাশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশন ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) এবং আইএসপি এর সাথে কয়েক দফা সভা করে কোন সমাধানে পৌঁছানো যায়নি। এ ব্যাপারে আইনগতভাবে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কোন দায়-দায়িত্ব নেই বিধায় আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে আইএসপিগণকে এনটিটিএন কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ জানানো গেল। অন্যথায় অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতির জন্য সংশ্লিষ্টরা দায়ী থাকবেন।’

 

সিলেটের বার্তা ডেস্ক

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯